Home
Published: 2017-04-25 23:30:16

পুলিশের কর্মকর্তারা ঐ সাব-ইন্সপেক্টরকে মোহাম্মদ মিজানুল ইসলাম নামে চিহ্নিত করেছেন।

হালিমা বেগম তাঁর ডায়েরিতে আরো লিখেছেন তিনি যখন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ নিয়ে যান, সেটি তিনি গ্রহণ করেননি।

গৌরীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দেলোয়ার আহমেদ জানিয়েছেন, "আমার কাছে সে ধর্ষণের অভিযোগ করেনি। উল্টো মিজান আমার কাছে অভিযোগ করেছে যে হালিমা তাকে ব্ল্যাকমেইল করছিলো"।

হালিমা বেগমের অভিযোগ তিনি কেন গ্রহণ করেননি, এমন এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, "একথা পুরো অসত্য। আমার কাছে সে কোন অভিযোগ করেনি"।

এ ঘটনায় হালিমার বাবা বাদী হয়ে ঐ সাব-ইন্সপেক্টরের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন।

এসআই মিজানুল বর্তমানে কারাগারে আছেন বলে জানিয়েছেন দেলোয়ার আহমেদ।

গত বছর শেষের দিকে কমনওয়েলথ হিউম্যান রাইটস ইনিশিয়েটিভ নামে একটি সংস্থার গবেষণায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশে পুলিশ বিভাগে কর্মরত নারী সদস্যদের মধ্যে ১০ ভাগের বেশি সদস্য যৌন হয়রানির শিকার হন।

ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে থাকা পুলিশ বিভাগে তাদেরই এক কর্মকর্তার হাতে আর এক পুলিশ সদস্যের এমন ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে বেশ আলোচনা চলছে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে।

নারী পুলিশদের জন্য গঠিত বাংলাদেশ পুলিশ উইমেন নেটওয়ার্কের প্রেসিডেন্ট ও পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক মিলি বিশ্বাস বলছেন, "তদন্তের অগ্রগতি নিয়ে আমরা ওয়াকিবহাল আছি। ভিকটিমের বাবা হেলাল উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ পূর্বক তদন্তের অগ্রগতিতে সহযোগিতা প্রদান করা হচ্ছে"।

পুলিশ বিভাগে সাধারণত নারী সদস্যরা কী ধরনের অভিযোগ করেন বা কী পরিমাণে অভিযোগ তারা পান, সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, "সাধারণত পুলিশের নারী সদস্যগণ তাদের প্রশাসনিক সমস্যার কথাই বেশি উল্লেখ করেন। অভিযোগের মাত্রা আসলে খুব বেশি নয়, মোটামুটি সহনীয় পর্যায়ে আছে। বিষয়টি আসলে অভ্যন্তরীণ এবং গোপনীয়"।

এর চেয়ে বিস্তারিতভাবে তিনি আর কিছু বলতে চাননি।

ব্রেকিং নিউজঃ
Widget by:Baiozid khan